বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪
নজরুল ও অন্য গীতিকবির গান প্রসঙ্গে
রফিক সুলায়মান
প্রকাশ: শনিবার, ১ জুন, ২০২৪, ৩:২২ PM আপডেট: ০১.০৬.২০২৪ ৩:২৬ PM
কবির অসুস্থতার পর থেকেই মূলত শুরু হয় সঙ্গীতের নজরুলকে নিয়ে অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলা, যার রেশ আজো বিদ্যমান। নজরুলের গান অন্যের নাম এবং অন্য গীতিকবির গান নজরুলের নামে তখন থেকেই চলছে। বাংলাদেশ এবং ভারতের বাংলাভাষী গবেষকগণ দীর্ঘদিন ধরে এমন অনাহূত পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করলেও কারো কারো ফাপর দালালি মানসিকতার কারণে এই প্রক্রিয়া শতভাগ আলোর মুখ দেখছে না। সম্প্রতি এক তথাকথিত নজরুল অনুরাগী বলেই দিয়েছেন ‘কালো ভ্রমর এল গো আজ’ গানটি যে নজরুলের এটি তিনি প্রমাণ করেই ছাড়বেন।

গত শতাব্দীর ৩০-এর দশকের শুরুতে আকাশবাণীর সান্ধ্যকালীন একটি অনুষ্ঠানে আঙ্গুরবালা দেবী তিনটি গান পরিবেশন করেছিলেন। গান তিনটি হলোÑ কালো ভ্রমর এল গো আজ, মন দিয়ে প্রিয়ে যেয়োনা ফিরে এবং আমি সুন্দর নহি। শেষ গানটি নজরুলের, মাঝেরটি প্রণব রায়ের এবং প্রথম গানের রচয়িতা ধীরেন মুখোপাধ্যায়। কয়েক দশক আগে অজয় চক্রবর্তী ‘কালো ভ্রমর এল গো আজ’ নজরুলের নামে গেয়ে ফেলার পর কেউ কেউ বিশ্বাস করতে শুরু করেন যে গানটি নজরুলেরই রচনা।

রেকর্ডে এরকম ভুল অনেকেই করেছেন। সোহরাব হোসেন নজরুলের নামে তার লংপ্লেতে দুটো গান রেখেছিলেন; যা পরে নজরুলের নয় বলে প্রমাণিত হয়। কিছুদিন আগেও ফাহমিদা নবী তার নজরুলের এলবামে ‘ছন্দে ছন্দে দুলি আনন্দে’ রেখেছিলেন। ব্যাপক সমালোচনার পর তিনি বিবৃতি দেন যে তার নিজের অত্যন্ত প্রিয় গান বলে প্রণব রায়ের এই গানটি এলবামে রেখেছিলেন।

সেকালে রেকর্ড কোম্পানি একই রেকর্ডে অসংখ্যবার দুই গীতিকারের লেখা গান অবমুক্ত করেছেন। যেমন উত্তরা দেবীর গাওয়া ‘কে পরালো মুণ্ডমালা’ রেকর্ডটির কথাই ধরা যাক। এক পিঠে নজরুলের, অপর পিঠে রামপ্রসাদী ‘মায়ের ভাব কি ভেবে পরাণ গেল’। এখন কারো সংগ্রহে যদি এই রেকর্ডটি থাকে এবং রামপ্রসাদী গানের লেবেল সাঁটানো না থাকে তাহলে নিশ্চিতভাবেই মনে হতে পারে যে গানটি গানটি নজরুলের! ‘আকাশের আর্শিতে ভাই’ দীর্ঘদিন নজরুলের গান হিসেবে প্রচলিত ছিল বাংলাদেশে। রেডিও-টিভিতে অনেক শিল্পী বহুবার গেয়েছেনও। পরে জানা গেল যে এটি বজরুলের গান নয়। অতি সম্প্রতি নজরুলের নামে প্রচলিত ‘সদা মন চাহে মদীনা যাবো’ গানের রেকর্ড কোম্পানির চুক্তিপত্র আবিষ্কৃত হওয়ার পর জানা গেল যে এই গানের গীতিকবি মুহাম্মদ সুলতান। অথচ আবদুল আলীম থেকে বিজন মিস্ত্রি গানটিকে নজরুল বিরচিত মনে করেই রেকর্ড করেছেন।

কেবল ‘কালো ভ্রমর’ নয়; অতীতে ধীরেন মুখোপাধ্যায়ের আরো চারটি গান নজরুলের গান হিসেবে বাংলাদেশ, আগরতলা এবং পশ্চিমবঙ্গে গাওয়া হতো। গানগুলো হলো- কত রাতি পোহায় বিফলে, কে এলে বাদলা রাতে, কোন জোছনায় মলয় হাওয়ায় এবং চোখ মুছিলে জল মোছে না। ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে বলছি, আমাকে একজন আদি রেকর্ড দিয়েছিলো ‘পেয়ে অবেলা ঘটালে জ্বালা’ নজরুলের গান হিসেবে। যুক্তি হলো অনুপ জালোটা এটি নজরুলের গান হিসেবে রেকর্ড করেছিলেন। কিন্তু গানটি হেমেন্দ্র কুমার রায়ের লেখা। সুর কৃষ্ণচন্দ্র দে, মূল শিল্পী আঙ্গুরবালা দেবী, ১৯২৯। আমি সৌভাগ্যবান যে মূল রেকর্ডটি আমার সংগ্রহে আছে।

আঙ্গুরবালা দেবী সেদিন আসলে একটিই নজরুল-সঙ্গীত গেয়েছিলেন ‘আমি সুন্দর নহি’। বাকি দুটো সমকালের অন্য দুই বিখ্যাত গীতিকবির। আঙ্গুরবালার গান মানেই নজরুলের এমনটি ভাবা ঠিক নয়। তিনি নানা শ্রেণি ও অঙ্গের গান রেকর্ড করেছেন। তার জন্যে গান রচনা করেছেন কবি নজরুল ছাড়াও সমকালের অনেক গীতিকার।

নজরুল-ভুবনের এই বিভ্রান্তি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করেছেন ব্রহ্মমোহন ঠাকুর, শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়, মায়া রায়, ড. রশিদুন নবী, জিল্লুর রহমান, স্বাগত গুপ্ত প্রমুখ। ড. রশিদুন নবী এই বিষয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ গ্রন্থও রচনা করেছেন ‘নজরুল-সঙ্গীতের ভুবনে অন্যান্য গীতিকারের গান’ শিরোনামে। বইটি প্রকাশ করেছে অনুপম প্রকাশনী। তিনি নজরুলের নামে প্রচলিত এরকম ২৭২টি গানের তালিকা প্রণয়ন করেছেন। সত্যিকারের শ্রমলব্ধ প্রয়াস। গ্রন্থটি সম্পর্কে পরে একটি দীর্ঘ আলোচনা প্রকাশ করার বাসনা রাখি।

নজরুল আমাদের জাতীয় কবি। নজরুল প্রাণের কবি, প্রেমের কবি, সাম্যের কবি। ১৯৪২ সালের পর দীর্ঘদিন হেলায়-ফেলায় তার রচনা এদিক-সেদিক ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়েছিলো। রেকর্ড কোম্পানিগুলোও আস্তে আস্তে মুখ ফিরিয়ে নেয়। ষাট দশক থেকে শুরু হয় অজাচার। সুরবিকৃতি এবং অন্য গীতিকবির গান নজরুলের নামে চলতে থাকে। অনুপ্রবেশ ঘটে কুটিল সমালোচকদের। কবির অসুস্থতার সুযোগে চলে এক হরিলুটের অধ্যায়। এই অরাজকতা থেকে নজরুলকে মুক্ত করার প্রথম উদ্যোগটি গ্রহণ করেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অসুস্থ কবিকে বাংলাদেশে উড়িয়ে এনে। নজরুলের রচনা ও সঙ্গীত যেন স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললো।

আজকালের খবর/আরইউ








সর্বশেষ সংবাদ
সাবেক কর কমিশনার ওয়াহিদা রহমানের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা
ময়মনসিংহে ১৫০ বস্তা ভারতীয় চিনিসহ যুবক আটক
উপজেলা ভোট: সংক্ষুব্ধরা নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে যেতে পারবেন
ঈদের দিন চলবে না মেট্রোরেল
তারেক রহমানের ভাবমূর্তি নষ্ট করতেই প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্য
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
জিয়াউদ্দিন আলমের কথায় গাইলেন ইমরান
এমপি আনার হত্যার ছবি প্রকাশ, বেরিয়ে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য
বাংলাদেশ নিয়ে যে বার্তা দিলেন ডোনাল্ড লু
এ বছরের পর আর টিকিট কালোবাজারি থাকবে না: র‌্যাব
ফের আওয়ামী লীগের উপ কমিটির সদস্য সাজ্জাদ চিশতী
Follow Us
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : হাউস নং ৩৯ (৫ম তলা), রোড নং ১৭/এ, ব্লক: ই, বনানী, ঢাকা-১২১৩।
ফোন: +৮৮-০২-৪৮৮১১৮৩১-৪, বিজ্ঞাপন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সার্কুলেশন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮, ই-মেইল : বার্তা বিভাগ- newsajkalerkhobor@gmail.com বিজ্ঞাপন- addajkalerkhobor@gmail.com
কপিরাইট © আজকালের খবর সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft