ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ  বৃহস্পতিবার ● ৪ মার্চ ২০২১ ● ২০ ফাল্গুন ১৪২৭
ই-পেপার  বৃহস্পতিবার ● ৪ মার্চ ২০২১
শিরোনাম: এইচ টি ইমাম আর নেই       জরুরি ভিত্তিতে সাড়ে ৫ লাখ টন চাল আমদানির অনুমোদন       ভুয়া এনআইডি: ইসির ৪৪ জন বরখাস্ত       জয়শঙ্কর আসছেন আজ       খালেদার আবেদন পরীক্ষা-নিরীক্ষায়       লোকসানের তলানিতে ফার্স্ট ফাইন্যান্স: ফেঁসে যাচ্ছেন এমডি তুহিন রেজা       যে কারণে ফের বাড়ছে করোনা       
রোজায় বাজার নিয়ন্ত্রণে উদ্যোগের এখনই সময়: এনবিআরকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের চিঠি
আমদানি পণ্যের শুল্ক কমানোর বিকল্প নেই
প্রিন্ট সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক
Published : Tuesday, 23 February, 2021 at 12:49 AM, Update: 23.02.2021 1:10:26 AM


এমনিতেই রোজার মাসে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ার আশঙ্কা থাকে। বিশেষ কিছু পণ্য যেমন ভোজ্যতেল, চিনি, ডাল, ছোলা, পেঁয়াজ ও বেগুন। এবার আন্তর্জাতিক বাজারে এসব পণ্যের মধ্যে সবচেয়ে বেশি চাহিদার চিনি, তেল, চাল, ডালের দাম বাড়ায় দেশের বাজার রোজার আগে থেকেই চড়া। সুতরাং এবার রোজায় আরো দাম বাড়ার আশঙ্কাও তীব্র হচ্ছে। এই উভয় সংকট কাটিয়ে দেশে বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে সরকারকে আমদানিনির্ভর নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য চিনি, ভোজ্যতেল ও ডালসহ বেশ কিছু পণ্যের আমদানি শুল্ক কমিয়ে বাজার মনিটরিং জোরদারের পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। আর এই উদ্যোগ নিতে হবে এখনই।
বাজার বিশ্লেষক ও অর্থনীতিবিদরা বলছেন, করোনার কারণে নিম্নআয়ের মানুষের ক্রয়-ক্ষমতা অনেক কমে গেছে। মানুষের আয় আর আগের জায়গায় ফেরেনি। তাই সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে সরকারকে নিত্যপণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে হবে। আর আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের দাম বাড়লে, সেই পণ্যের বাজার নিয়ন্ত্রণে আমদানি শুল্ক কমানোর কোনো বিকল্প নেই।
আন্তর্জাতিক বাজারে যখন কোনো নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যাবে, তখন সরকার সেই পণ্যের শুল্ক কমিয়ে দেবে। আবার যখন কমে যাবে, তখন সরকার আবার বাড়িয়ে দেবে। এতে করে সরকারের রাজস্ব আয়ে তেমন প্রভাব পড়বে না। এ ছাড়া রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) বিলাসী পণ্যের শুল্ক বাড়িয়ে তা সমন্বয় করতে পারে বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদ ও বাজার বিশ্লেষকরা।
বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি গতকাল সোমবার আজকালের খবরকে বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে কিছু নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে। আমরা সেসব বিষয় নিয়ে পর্যালোচনা করছি। ইতোমধ্যেই ভোজ্যতেলের দাম কামনোর জন্য আমরা চিঠি দিয়েছি। কারণ ভোজ্যতেলের শুল্ক কমাবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বৃদ্ধির কারণে চিনিসহ আরো কিছু পণ্যের আমদানি শুল্ক কমানো যায় কিনা সে বিষয়েও আমরা চিন্তা-ভাবনা করছি।
বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর আতিউর রহমান এ বিষয়ে আজকালের খবরকে বলেন, সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোকে দেশের বাজার এবং আন্তর্জাতিক বাজারে এসব পণ্যের দাম মনিটরিং করতে হবে। প্রয়োজন মনে করলে শুল্ক কমাবে, আবার যখন প্রয়োজন মনে করবে শুল্ক বাড়াবে। যেভাবে আমরা মাঝে মাঝে চালের আমদানি শুল্ক কমানো এবং বাড়ানো হয়।
কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান আজকালের খবরকে বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে যেসব নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে, সেসব পণ্যের শুল্ক কমিয়ে দেশের বাজারে দাম নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। আবার যখন বিশ^ বাজারে দাম কমে যাবে, তখন সরকার প্রয়োজন মনে করলে আবার শুল্ক বাড়াতে পারে। প্রয়োজনে সরকার বিলাসী পণ্যের শুল্ক সাময়িক সময়ের জন্য বাড়িয়ে তা সমন্বয় করতে পারে। এতে সরকারের রাজস্ব আদায়ে খুব বেশি প্রভাব পড়বে না।
গোলাম রহমান আরো বলেন, নিম্নআয়ের মানুষের কথা চিন্তা করে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) ভর্তুকি দিয়ে পণ্য আমদানি করে বাজার সরবরাহ বাড়াতে পারে।
অর্থনীতিবিদ আনু মোহাম্মদ বলেন, বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের বাণিজ্য, কৃষি এবং শিল্প মন্ত্রণালয় মিলে কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে। বাজার নিয়ন্ত্রণে শুল্ক কমাতে পারে সরকার। তবে সে ক্ষেত্রে সরকারের তদারকি থাকতে হবে। শুল্ক কমানোর কারণে যাতে কেউ সুযোগ নিতে না পারে।
এ বিষয়ে জানতে এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। মুঠোফোনে ক্ষুদে বার্তা দিলেও তিনি কোনো জবাব দেননি।
আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশের বাজারেও আমদানিনির্ভর নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে থাকে। গত বছরের সঙ্গে এ বছরের দাম বৃদ্ধির একটি চিত্র তুলে ধরা হলো:
চিনি :
চিনি ও খাদ্যশিল্প করপোরেশনের তথ্যমতে, দেশে বছরে চিনির চাহিদা ১৬ লাখ টন। সে হিসাবে প্রতি মাসে চাহিদা এক থেকে সোয়া লাখ টন। তবে রমজানে চাহিদা দুই থেকে আড়াই লাখ টন হয়। গত বছরের শুরুতে খোলা চিনি ৬৩ টাকা ও প্যাকেটজাত চিনি ৬৮ টাকায় ওঠে। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বৃদ্ধির কারণে রমজানের আগেই চিনি বাজারভেদে বিক্রি হচ্ছে ৬৫ থেকে ৭০ টাকা পর্যন্ত। এক বছর ব্যবধানে চিনির দাম বেড়েছে চার শতাংশ।
ভোজ্যতেল :
টিসিবি বলছে, গত এক বছরে সয়াবিন তেলের দাম বেড়েছে ৪০ শতাংশ। এর মধ্যে খোলা পাম অয়েলের দাম বেড়েছে ৩০ শতাংশ। আর খোলা সয়াবিনের দাম বেড়েছে ২৪ শতাংশ। পাম অয়েল সুপারের দাম বেড়েছে ২৫ শতাংশ। আর পাঁচ লিটার বোতলের সয়াবিনের দাম বেড়েছে ২৫ শতাংশ এবং এক লিটার বোতলের দাম বেড়েছে ২৩ শতাংশ।
এর আগে গত মঙ্গলবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বিপণন ও পরিবেশবিষয়ক জাতীয় কমিটির সভায় খুচরা বাজারে বোতলজাত সয়াবিন তেলের লিটারপ্রতি দাম ১৩৫ টাকা, খোলা সয়াবিন ১১৫ টাকা ও পাম সুপার ১০৪ টাকা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। বোতলজাত সয়াবিনের পাঁচ লিটারের এক বোতলের দাম ধরা হয় ৬৩০ টাকা। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বৃদ্ধির কারণে ভোজ্যতেলের দাম বেড়েই যাচ্ছে।
গত বছর জানুয়ারিতে সয়াবিনের পাইকারি মূল্য ছিল প্রতি লিটার ১০০ থেকে ১০২ টাকা (বোতলজাত) ও খুচরা মূল্য ১০৫ থেকে ১০৬ টাকা। খোলা তেলের খুচরা মূল্য ছিল লিটার ৮৭ থেকে ৮৮ টাকা।
ডাল :
গত বছর মসুর ডালের প্রতি কেজি পাইকারি মূল্য ১০৫ থেকে ১১০ টাকা এবং খুচরায় ছিল ১১৫ থেকে ১২০ টাকা। বর্তমানে বাজারে ভালো মানের ডাল বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৩৫ টাকা। মাঝারি মানের ডাল বিক্রি হচ্ছে ১১০ থেকে ১১৫ টাকা।                                                    এনএমএস।






সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : হাউস নং ৩৯ (৫ম তলা), রোড নং ১৭/এ, ব্লক: ই, বনানী, ঢাকা-১২১৩।
ফোন: +৮৮-০২-৪৮৮১১৮৩১-৪, বিজ্ঞাপন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সার্কুলেশন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮
ই-মেইল : বার্তা- [email protected] বিজ্ঞাপন- [email protected]
দৈনিক আজকালের খবর লিমিটেডের পক্ষে গোলাম মোস্তফা কর্তৃক বাড়ি নং-৫৯, রোড নং-২৭, ব্লক-কে, বনানী, ঢাকা-১২১৩ থেকে প্রকাশিত ও সোনালী প্রিন্টিং প্রেস, ১৬৭ ইনার সার্কুলার রোড (২/১/এ আরামবাগ), ইডেন কমপ্লেক্স, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com