ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ  সোমবার ● ৮ মার্চ ২০২১ ● ২৪ ফাল্গুন ১৪২৭
ই-পেপার  সোমবার ● ৮ মার্চ ২০২১
শিরোনাম: আন্তর্জাতিক নারী দিবস আজ       বঙ্গবন্ধু যে মুক্তির কথা বলেছেন তা পেতে হলে দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে       নারীর স্বাবলম্বিতা বাড়ছে কমছে না শ্রম বৈষম্য       আট ইস্যুতে বাংলাদেশ-ভারত সচিব পর্যায়ের বৈঠক আজ       যেভাবে রক্ষা পেয়েছিল বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের রেকর্ড        প্রতারণার বড় প্ল্যাটফর্ম সাইবার: না জেনে সর্বস্ব যাচ্ছে অনেকের       স্বাস্থ্যে অনিয়ম-দুর্নীতি নজরদারীতেই দুদক       
প্রিন্ট সংস্করণ
আরো ৫০ লাখ ডোজ টিকা আসছে আজ: প্রথম প্রয়োগ ২৪ জনকে
নিজস্ব প্রতিবেদক
Published : Monday, 25 January, 2021 at 1:53 AM

# জোর করে কাউকে নয়: অবজারভেশনে রাখা হবে কিছুক্ষণ

# পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হলে সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসা

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে ক্রয়কৃত আরো ৫০ লাখ ডোজ করোনা টিকা কোভিশিল্ড আজ সোমবার দেশে আসছে বলে জানিয়েছেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। এজন্য সব প্রস্ততিও নেওয়া হয়েছে। আর পরীক্ষামূলকভাবে শুরু হওয়া টিকা প্রয়োগের প্রথম দিন ২৭ জানুয়ারি বিভিন্ন শ্রেনির ২৪ জনকে এই ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। রাজধানীর কুর্মিটোলা জেরারেল হাসপাতালে ভার্চুয়ালি এই টিকাদানের উদ্ধোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল রবিবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।
তিনি বলেন, ‘ভারতের দেওয়া উপহার হিসেবে ২০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন ইতিমধ্যেই আমরা পেয়েছি। সোমবার  ( আজ ) আমাদের ক্রয়কৃত আরো ৫০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন আসবে আশা করছি। এজন্য সব প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। সোমবার (২৫ জানুয়ারি) ৫০ লাখ ছাড়া এই মাসে ভ্যাকসিনের আর কোনো লট আসবে না জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এটা হবে চুক্তির প্রথম ধাপের ভ্যাকসিন।’ ইতোমধ্যে ভ্যাকসিন প্রয়োগের জন্য জাতীয় কমিটির প্রস্তুতি মোটামুটি শেষ হয়েছে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, ‘জানতে পেরেছি একটা অ্যাপ তৈরি করার বিষয় ছিল, সেটাও একটা ফাইনাল স্টেজে চলে আসছে।’
তিনি আরো বলেন, ‘ভ্যাকসিন কোন জেলায় কোন উপজেলায় নিয়ে যাব, সে পরিকল্পনাও করা হয়েছে। ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কার (সম্মুখসারীর যোদ্ধা), যাদের আমরা প্রথমে ভ্যাকসিন দেব তাদের তালিকাও আমাদের হাতে আছে।’ স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ‘২৭ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী আমাদের সময় দিয়েছেন। ভ্যাকসিন দেওয়ার যে পরিকল্পনা সেটা উনি উদ্বোধন করবেন। ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ শুরু হবে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল থেকে। প্রথম দফায় ভ্যাকসিন নিতে আগ্রহী ২৪ জনের বেশিরভাগই স্বাস্থ্যকর্মী। এর মধ্যে যারা নার্স, রোগীর একদম পাশে থাকেন, তাদের প্রাধাণ্য দেওয়া হচ্ছে। তাদেরই আমরা প্রথমে ভ্যাকসিন দেব। পর্যায়ক্রমে সবাই পাবে।’
ভ্যাকসিনে সামান্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘টিকা নিতে কাউকে বাধ্য করা হবে না। আর অনেক ভিআইপি আগ্রহী আছেন। তবে সরকার নিয়ম মেনে তাদের পরে দেবে। সময়মতো মন্ত্রী, সচিবরাও ভ্যাকসিন পাবেন। আর জেলা-উপজেলা হাসপাতালে যারা ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য আসবেন তাদের আলাদা বসার জায়গার ব্যবস্থা করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘তারা সেখানে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করবেন, অবজারভেশনে থাকবেন। কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হলে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দেওয়ার ব্যবস্থা আমরা করেছি। আমরা ভ্যাকসিন দেওয়ার কার্যক্রম বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুযায়ী করছি।’
এ সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ভ্যাকসিন নিতে চাইলে তাকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেওয়া হবে।’
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ভ্যাকসিনের বিষয়ে অনেক কথাবার্তা আসে, আমরা জানি। আমাদের কাছে যে ভ্যাকসিন আছে, সেটা অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি আবিষ্কার করেছে। অ্যাস্ট্রাজেনেকা কোম্পানি এই ভ্যাকসিনের মালিক, ভারতে শুধু এটার উৎপাদন হচ্ছে। তাদের উৎপাদন করার বড় একটি সুবিধা রয়েছে। বিভিন্ন দেশে এই ভ্যাকসিনটি ওখান (ভারত) থেকে পাঠানো হচ্ছে।
অনেকে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কথা বলছেন জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, প্রত্যেকটি ভ্যাকসিনের কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকে। ওষুধেরও থাকে। অনেক ওষুধ আছে অনেকের স্যুট করে না, এলার্জি হয়। এই ওষুধের যে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হবে না এটা আমরা বলতে পারি না। তবে যতটুকু শুনেছি, এই ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া খুব সামান্য। একটু মাথাব্যথা হয় বা জ্বর হয়।
ভ্যাকসিন নিয়ে অনেকের মধ্যে আস্থাহীনতা আছে, আস্থা তৈরিতে আপনারা কী পদক্ষেপ নেবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে জাহিদ মালেক বলেন, ‘যত ভ্যাকসিন আবিষ্কৃত হয়েছে, এর মধ্যে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াই সবচেয়ে কম। সেই দিক বিবেচনায় আমরা মনে করি এটা নিরাপদ। সায়েন্টিফিক ফর্মুলাও বেশ নিরাপদ। যেখানে প্রয়োগ করা হয়েছে সেখান থেকেও আমরা খবর পেয়েছি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া খুব কম হয়েছে। ভালো আছে লোকজন। আমাদের জনগণকে আশ্বস্ত করতে চাই আপনারা ভ্যাকসিন নেবেন। করোনা ভাইরাসের এই যুদ্ধে ইনশাআল্লাহ আমারা জয়লাভ করব। পার্শ্ববর্তী অনেক দেশ এখনো ভ্যাকসিন আনতে পারেনি। বলতে পারেন আমরা প্রথম ভ্যাকসিন এনেছি।’
টিকা দেওয়া প্রথম ২৭ জনের মধ্যে কোনো ভিআইপি বা রাজনীতিবিদ থাকছেন কিনা জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, যাদের টিকা দেওয়া হবে তাদের বেশিরভাগই স্বাস্থ্যকর্মী। বাইরের দুই-একজনও থাকতে পারেন। স্বাস্থ্যকর্মীদেরও জোর করে ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে না। ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কারদের প্রথমে টিকা দেওয়া হবে। অনেকেই ভ্যাকসিন চাচ্ছেন, অনেক সিনিয়র ব্যক্তি যাদের আপনারা নাম জানার ও শোনার চেষ্টা করছেন তাদের অনেকেই চাচ্ছেন। আমরা তাদের দিচ্ছি। এরপর আমরা সবাই নেব, আমরাও নেব।
বিদেশি গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ হয়েছে ট্রায়ালের জন্য ভারত এই টিকা পাঠিয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘অনেকে অনেক কথা বলতে পারে। ভারত ও লন্ডনে বহু লোককে এই ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে, তাই ট্রায়াল করার আর প্রশ্ন জাগে না। তিন কোটি ভ্যাকসিন ট্রায়ালের জন্য প্রয়োজন হয় না। আমরা এটা (ভ্যাকসিন) লোককে দেওয়ার জন্য জেনেশুনেই এনেছি।’ স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, ‘ভ্যাকসিনের জন্য আমাদের আরো অর্থের প্রয়োজন হবে, এরইমধ্যে বিভিন্ন দাতা সংস্থা থেকে এক দশমিক আট বিলিয়ন ডলার সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে। তারমধ্যে বিশ্বব্যাংক, জাইকার মতো প্রতিষ্ঠানগুলোও রয়েছে। এখন বাংলাদেশ সরকারের সিদ্ধান্ত তারা কতটুকু গ্রহণ করবে বা করবে না। বাংলাদেশের প্রতি তাদের অনেক আস্থা, সেই আস্থার ফলই আমরা এসব প্রস্তাবের মাধ্যমে পাচ্ছি।’
কিট দিয়ে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) অ্যান্টিবডি পরীক্ষার অনুমতি দেওয়া হয়েছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘অনেক দিনের দাবি ছিল অ্যান্টিবডি পরীক্ষার বিষয়টি। আমরা এখন থেকে অ্যান্টিবডি টেস্ট করার অনুমতি দিচ্ছি। এটা অনেকেরই দাবি ছিল।’
কবে নাগাদ অ্যান্টিবডি পরীক্ষা হবে, কত সংখ্যক কিট আছে? এসব বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘এখন আপনাদের সামনে বললাম তখন থেকেই অনুমোদন দেওয়া হয়ে গেল। বাজারে কী পরিমাণ অ্যান্টিবডি টেস্ট কিট আছে, এই পরিসংখ্যান আমি দিতে পারব না। যার প্রয়োজন হবে কিট নিয়ে আসবে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এই কিট আমদানি করতে পারবে। পরীক্ষার জন্য বিভিন্ন হাসপাতাল এটা নিতে পারবে। এটার মধ্যে কোনো প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয়নি।’
এসময় স্বাস্থ্য সচিব আব্দুল মান্নান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক এ বি এম খুরশীদ আলমসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এনএমএস।




সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : হাউস নং ৩৯ (৫ম তলা), রোড নং ১৭/এ, ব্লক: ই, বনানী, ঢাকা-১২১৩।
ফোন: +৮৮-০২-৪৮৮১১৮৩১-৪, বিজ্ঞাপন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সার্কুলেশন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮
ই-মেইল : বার্তা- [email protected] বিজ্ঞাপন- [email protected]
দৈনিক আজকালের খবর লিমিটেডের পক্ষে গোলাম মোস্তফা কর্তৃক বাড়ি নং-৫৯, রোড নং-২৭, ব্লক-কে, বনানী, ঢাকা-১২১৩ থেকে প্রকাশিত ও সোনালী প্রিন্টিং প্রেস, ১৬৭ ইনার সার্কুলার রোড (২/১/এ আরামবাগ), ইডেন কমপ্লেক্স, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com