ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ  মঙ্গলবার ● ২০ অক্টোবর ২০২০ ● ৫ কার্তিক ১৪২৭
ই-পেপার  মঙ্গলবার ● ২০ অক্টোবর ২০২০
শিরোনাম: দুই অতিরিক্ত অ্যাটর্নির পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছেন রাষ্ট্রপতি       অভিযান, আলু বিক্রি বন্ধ রেখেছেন ব্যবসায়ীরা       বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ১১ লাখ ১৭ হাজার ছাড়িয়েছে       অবশেষে সহায়তা পেলেন বসনিয়ায় আটকেপড়া বাংলাদেশিরা       কুমিল্লায় ভোটকেন্দ্রে সংঘর্ষ, গাড়ি ভাঙচুর       ২০৮ উপজেলা-ইউনিয়ন পরিষদে ভোট চলছে       ধর্মঘটে পণ্যবাহী নৌযান শ্রমিকেরা      
সড়ক প্রশস্তের নামে ভেঙে ফেলা হলো কুমুদা স্মৃতিস্তম্ভ
সৈয়দ মেহেদী হাসান, বরিশাল
Published : Thursday, 15 October, 2020 at 5:38 PM

ব্রিটিশ ও পাকিস্তান বিরোধী আন্দোলনের নেতা, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক বিপ্লবী কুমুদ বিহারী গুহ ঠাকুরতার (কুমুদা) স্মৃতিস্তম্ভ ও সমাধি ভেঙে ফেলেছে স্থানীয় প্রশাসন। সড়ক প্রশস্তের নাম করে মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) দুপুরে বরিশাল জেলার বানারীপাড়া উপজেলায় এই মহান মানুষটির জন্মভিটার স্মৃতি স্তম্ভ ভেঙে ফেলা হয় বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। 

তবে স্মৃতি স্তম্ভ ভাঙা হয়নি বলে দাবি করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ আব্দুল্লাহ সাদীদ। তিনি বলেছেন, সড়ক প্রশস্ত করতে গিয়ে শ্রমিকরা ভুলবশত ওই অংশের দেওয়াল ভেঙে ফেলেছে। আমরা বিষয়টি দেখেছি, শ্রমিকদের সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। এই কর্মকর্তা আশ্বস্ত করে বলেন, যে অংশ ভেঙে ফেলা হয়েছে সেখানে পুনরায় নির্মাণ করা তো হবেই, পাশাপাশি সৌন্দর্য বর্ধনে উপরে একটি শেড তৈরি করা হবে। এজন্য আলাদা প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে।

যদিও স্থানীয়রা বলছেন, রাষ্ট্রের ঐতিহাসিক স্থাপনা এবং মুক্তিযোদ্ধা কার্যালয়ের দেয়াল ভেঙে ফেলায় তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে কুমুদা স্মৃতিস্তম্ভ পুনঃনির্মাণের ঘোষণা দিয়েছে প্রশাসন। বাস্তবে কতটুকু হবে তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন কেউ কেউ।

বানারীপাড়া মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক সভাপতি বেনি লাল দাস জানিয়েছেন, কয়েকদিন আগে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের বাউন্ডারি ভেঙে ফেলা হয়। মঙ্গলবার বিপ্লবী কুমুদ বিহারী গুহ ঠাকুরতার স্মৃতি স্থাপনা ও সমাধি ভেঙে ফেলতে আমি দেখেছি। স্থানীয় সমস্যার কারণে তিনি আর কোন কথা বলতে রাজি হননি।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ আনুষ্ঠানিকভাবে কোন বক্তব্য দিতে রাজি হয়নি। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে নেতৃস্থানীয় কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা জানিয়েছেন, সম্পূর্ণরূপে প্রতিহিংসার বর্শবর্তী হয়ে একজন প্রভাবশালীর মদদে বির্তকিত ওই অভিযান চালানো হয়েছে। রাষ্ট্র যেখানে ঐতিহাসিক স্মৃতি সংরক্ষণে নানামুখী উদ্যোগ নিচ্ছে, তখন এ ধরনের অভিযান বা সড়ক প্রশস্তকরণের নামে বিপ্লবী কুমুদ বিহারী গুহ ঠাকুরতার বাড়ির স্থাপনা ভেঙে ফেলা দূরভিসন্ধির অংশ।

প্রসঙ্গত, ১৯০৪ সালের ৮ ডিসেম্বর বানারীপাড়ায় নিজ পিত্রালয়ে তমাল তলায় জন্ম গ্রহণ করেন বিল্পবী কুমুদ বিহারী গুহ ঠাকুরতা। তার পিতা ছিলেন শরৎ গুহ ঠাকুরতা ও মাতা ছিলেন ভুবন মহীনি দেবী। তাদের চার ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে কুমুদা ছিলেন সর্ব কনিষ্ঠ। তিনি ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে কথা বলতেন। ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে ১৭ বার কারান্তরীণ হয়েছেন। আন্দোলন করতে গিয়ে বিয়ে করা হয়নি তার। প্রতিজ্ঞা করেছিলেন যতক্ষণ পর্যন্ত দেশ (অর্থাৎ বর্তমান ভারত, পাকিস্তান ও বাংলাদেশ) স্বাধীন না হবে ততদিনে তিনি বিয়ে করবেন না।

১৯৪৭ সালে দেশ স্বাধীন হলো ঠিকই, কিন্তু ওই সময়ে বয়স পেরিয়ে যাওয়ায় আর বিয়ে করা হয়নি। ১৯৪৭ সালে দেশভাগের পর তার পরিবার পূর্ব পাকিস্তান ছেড়ে ভারতে চলে যায়। কিন্তু তিনি দেশ মাতৃকার টানে পূর্ব পাকিস্তানে থেকে যান। দেশে থেকে যাওয়ার সুবাদে পাকিস্তানের অত্যাচার শোষণ ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে সর্বদা সরব থাকতেন। তিনি পাকিস্তান বিরোধী আন্দোলন করায় তাকে ৮ বার এবং ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে ১৭ বারসহ মোট ২৫ বার কারাগারে যেতে হয়। দুটো স্বাধীনতা আন্দোলনে অংশ গ্রহণ করা বিল্পবী কুমুদ বিহারী গুহ ঠাকুরতা বানারীপাড়ায় প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বিভিন্ন শিক্ষা, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান। আর তার কোন বংশধর না থাকায় জন্মবাড়িটাই  ছিল স্মৃতিচিহ্ন। সড়ক প্রশস্তকরণের নামে সেটিও ভেঙে ফেলা হলো।
আজকালের খবর/এসএম


সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : হাউস নং ৩৯ (৫ম তলা), রোড নং ১৭/এ, ব্লক: ই, বনানী, ঢাকা-১২১৩।
ফোন: +৮৮-০২-৪৮৮১১৮৩১-৪, বিজ্ঞাপন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সার্কুলেশন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮
ই-মেইল : বার্তা- [email protected] বিজ্ঞাপন- [email protected]
দৈনিক আজকালের খবর লিমিটেডের পক্ষে গোলাম মোস্তফা কর্তৃক বাড়ি নং-৫৯, রোড নং-২৭, ব্লক-কে, বনানী, ঢাকা-১২১৩ থেকে প্রকাশিত ও সোনালী প্রিন্টিং প্রেস, ১৬৭ ইনার সার্কুলার রোড (২/১/এ আরামবাগ), ইডেন কমপ্লেক্স, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com