ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ  শনিবার ● ২৪ অক্টোবর ২০২০ ● ৯ কার্তিক ১৪২৭
ই-পেপার  শনিবার ● ২৪ অক্টোবর ২০২০
শিরোনাম: রিজভীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি       করোনায় আরও ১৯ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১০৯৪       স্ত্রীর কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত ব্যারিস্টার রফিক-উল হক       নৈরাজ্য সৃষ্টিকারী কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী       ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে ডিএসসিসি মেয়রের শোক       মিয়ানমারের গণহত্যার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতে পূর্ণাঙ্গ আবেদন জমা দিল গাম্বিয়া       স্থল নিম্নচাপ দেশের মধ্যাঞ্চলে, আজও ভারী বৃষ্টি      
কারাগারে বন্দী ২৮ সেপ্টেম্বর
মো. আব্দুল মতিন
Published : Tuesday, 29 September, 2020 at 4:14 PM

মো. আব্দুল মতিন

মো. আব্দুল মতিন

২৮ সেপ্টেম্বর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন। ২০০৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর তিনি কারাগারে বন্দী। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান। প্রকাশ্যে রাজনৈতিক কার্যক্রম তখন নিষিদ্ধ। আমি তখন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক। প্রয়াত নেতা জিল্লুর রহমান চাচার বাসাকে ঘিরেই তখন আমাদের দলীয় কার্যক্রম।

হাতেগুনা কয়েকজন নেতা-কর্মী তখন আমরা প্রতিদিন জিল্লুর রহমান চাচার বাসায় যাই। প্রায় প্রতিদিনই জিল্লুর রহমান চাচা প্রেস ব্রিফিং করেন। জননেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তি কামনা করেন। আমার তখন দৈনন্দিন রুটিন  ছিল, সকালে জিল্লুর রহমান চাচার বাসায় যাওয়া, দুপুর পর্যন্ত থেকে বের হয়ে আশপাশে কারো বাসায় গিয়ে দু’মুঠো খেয়ে আবার চাচার বাসায় ফিরে আসা, রাত্রিতে বের হয়ে কোথাও ঘুমাতে যাওয়া। ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকার লন্ড্রিতে আমার কাপড় থাকতো, প্রায় সময় লন্ড্রিতেই কাপড় বদলাতে হতো, গ্রেফতারের ভয়-আতংকে খুব একটা সময় বাসায় থাকতাম না। ডিসেম্বর মাসের ২৮ তারিখে জননেত্রীর বিরুদ্ধে বিচার কার্যক্রম শুরু করার জন্য নেত্রীকে আদালতে আনা হয়। বর্তমানে বিচারপতি, সেদিনের আইনজীবী জনাব ইনায়েতুর রহিম ভাইকে ধানমন্ডির বাসা থেকে উঠিয়ে নিয়ে জাতীয় সংসদ ভবনে স্থাপিত বিশেষ আদালতে যাই। গ্রেফতারের পর সেদিনই প্রথম নেত্রীকে কাছ থেকে দেখি।

১৯ ডিসেম্বর আমি এক কন্যা সন্তানের বাবা হই। সেদিন আদালতের কাঠগড়ায় শ্রদ্ধেয় আপাকে আমার কন্যা সন্তান লাভের সংবাদ দেই। অত্যন্ত মানবিক গুনাবলী সম্পন্ন মহীয়সী মহিলা জননেত্রী শেখ হাসিনা আপা আমাকে বলেন, বউকে যেন উনার কথা বলে বলি, মেয়েকে যেন এক ঘন্টা পর পর বুকের দুধ খাওয়ায়। নারী মায়ের জাতি। মাতৃত্ববোধের সর্বোচ্চ গুনাবলী সম্পন্ন নারী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আমি কাছে থেকে দেখেছি। নেত্রীর বিরুদ্ধে বিচার কার্যক্রম শুরু হয়ে গেলে সপ্তাহে দুই/তিন দিন নেত্রীকে আদালতে নিয়ে আসতো, চারটি মামলার বিচার কার্যক্রম শুরুর জন্য সরকার তোড়জোড় শুরু করে।

আমার আইন পেশার ইন্টিমেশন সিনিয়র বিজ্ঞ আইনজীবী সৈয়দ রেজাউর রহমান তখন আমাকে ডেকে বলেন, “নেত্রীর মামলাগুলোর ট্রায়াল ব্রিফ প্রস্তুত করো, তবে আমি তোমাকে প্রকাশ্য দায়িত্ব দিতে পারবো না, আমার সেরেস্তায় আমার অনেক জুনিয়র, তুমি মামলাগুলো নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নাও”। শ্রদ্ধেয় স্যারের সাহস পেয়ে নেত্রীর বিরুদ্ধে বিচার শুরু হয়ে যাচ্ছে এমন চারটি মামলার ট্রায়াল ব্রিফ তৈরি করি। বার্জ মাউন্টেন্ড মামলায় বিচার শুরু হলে সাক্ষীকে জেরা করার পর জননেত্রী শেখ হাসিনা আমার হাতে বাইন্ডিং করা বড় খাতা দেখে বলেন, এটা কি, বলেছিলাম, এটাই আপনার মামলা, সাধারণত আমরা মামলার দলিলাদি কোর্ট ফাইলে রাখি, আপনার মামলার সকল দলিলাদি এবং সাক্ষীকে জেরা করার জন্য আমাদের প্রস্তুতকৃত পয়েন্টসমূহ  কম্পিউটার কম্পোজ করে বাইন্ডিং করেছি। তিনি আমার হাত থেকে বাইন্ডিং খাতার মতো দেখতে আমার তৈরি করা মামলার ট্রায়াল ব্রিফটি নিজ হাতে নিয়ে উল্টিয়ে পাল্টিয়ে দেখলেন। আমার সিনিয়র সৈয়দ রেজাউর রহমান তখন আপাকে বললেন, “মতিন মামলা প্রস্তুত করে দিলে আমার জেরা করতে কষ্ট কম হয়, আমার এখন বয়স হয়েছে! সে খুব ভালোভাবে মামলায় সাক্ষীকে জেরা করার জন্য দলিলাদি প্রস্তুত করে দেয়। কিন্তু সে খুব ফাঁকিবাজ, আপনার মামলায় বলে পেয়েছি”।

নেত্রী তখন আমাকে বললেন, পেশায় ফাঁকি দিও না। আমি নেত্রীকে বলেছিলাম, রাজনৈতিক কর্মকান্ডে আমি ফাঁকি দেই না আপা। মামলার বিচার কার্যক্রম শুরুর জন্য যেদিন নেত্রীকে আদালতে আনা হতো, সেদিন সকালে কোর্টে যেতাম, কোর্ট শেষে জিল্লুর রহমান চাচার বাসায়, সন্ধ্যার পর সৈয়দ রেজাউর রহমান স্যারের চেম্বার। নেত্রীর মুক্তির পূর্ব পর্যন্ত আমার দৈনন্দিন জীবন এমনিভাবেই অতিক্রম হতো।

যাহোক, শিরোনামের আলোচনায় আসি। ২৮ সেপ্টেম্বর সকালে জিল্লুর রহমান চাচার বাসায় গেলে, তিনি বিকালে কারাগারের গেইটে চাচার পক্ষে একটি ফুলের তোড়া বানিয়ে নিয়ে যেতে আমাকে দায়িত্ব দিলেন। কারাগারের গেইটের সামনে ড. হাসান মাহমুদ অপেক্ষা করবেন, তিনি আমার কাছ থেকে ফুলের তোড়া নিবেন। কারাগারের ডিআইজি প্রিজন শামসুল হায়দার চৌধুরী ড. হাসান মাহমুদের কাছ থেকে নেত্রীর জন্য আমাদের দলের পক্ষে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দেয়া ফুলেল শুভেচ্ছা গ্রহণ করবেন এবং নেত্রীর কাছে পৌঁছে দিবেন। আমি চাচার বাসা গুলশান থেকে বের হয়ে ধানমন্ডি আসি। ধানমন্ডি ২৭ নম্বরের মাথায় একটি ফুলের দোকানে তোড়া বানাতে দিয়ে পান্থপথে মানু মজুমদার (বর্তমানে এমপি) দাদার বাসায় যাই। মানু দাদা তখন পলাতক, দেশের বাইরে আছেন। বৌদির সাথে দুপুরের খাবার খেয়ে বৌদির খোঁজ-খবর নিয়ে একটু সময় বিশ্রাম করি। তারপর ঐ বাসা থেকে বের হয়ে হেঁটে হেঁটে ধানমন্ডি ২৭ নম্বরের দিকে যাচ্ছি।

যাওয়ার পথে রাসেল স্কোয়ারের মোড়ে আমার খুব প্রিয়জন, আমার মতোই আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক এক নেতার সাক্ষাত পাই, আমি তাকে ঘটনা বলে আমার সাথে যেতে অনুরোধ করি। তিনি বললেন, “ভাই, আমি আর রাজনীতি করবো না, আমি রাজনীতি ছেড়ে দিয়েছি, আপনাকেও অনুরোধ করি, এসব ছাড়েন, জেলে গেলে কেউ দেখবে না”। সেই নেতা বর্তমানে এমপি এবং আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির দায়িত্বশীল পদে অধিষ্ঠিত আছেন।

২০০৭ সালে ১/১১’র  সামরিক পোষাকের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় নেত্রীকে রাজনীতি থেকে বিতাড়িত করার জন্য প্রতিনিয়ত ধানমন্ডির ৬নং সড়কে এক নেতার বাসা এবং বেইলীরোডের এক নেতার বাসায় ষড়যন্ত্রের আড্ডা বসতো, সেই ষড়যন্ত্রের টেবিলে যারা নিয়মিত যেতো, তারা আজ দল ও সরকারের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে আছেন, তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর লাল টেলিফোনে জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। আমার কাছে আমার নেত্রী শ্রদ্ধেয় আপার জন্মদিন ‘২৮ সেপ্টেম্বর’ বন্দীই আছে।

মো. আব্দুল মতিন : অ্যাডভোকেট। সাবেক সহ-সম্পাদক, কেন্দ্রীয় উপ-কমিটি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।
এই লেখাটি লেখকের ফেসবুক টাইমলাইন থেকে নেওয়া হয়েছে।


সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : হাউস নং ৩৯ (৫ম তলা), রোড নং ১৭/এ, ব্লক: ই, বনানী, ঢাকা-১২১৩।
ফোন: +৮৮-০২-৪৮৮১১৮৩১-৪, বিজ্ঞাপন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সার্কুলেশন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮
ই-মেইল : বার্তা- [email protected] বিজ্ঞাপন- [email protected]
দৈনিক আজকালের খবর লিমিটেডের পক্ষে গোলাম মোস্তফা কর্তৃক বাড়ি নং-৫৯, রোড নং-২৭, ব্লক-কে, বনানী, ঢাকা-১২১৩ থেকে প্রকাশিত ও সোনালী প্রিন্টিং প্রেস, ১৬৭ ইনার সার্কুলার রোড (২/১/এ আরামবাগ), ইডেন কমপ্লেক্স, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com