শনিবার ১৫ জুন ২০২৪
তিন দশক পর এফডিসির পাওনা ফেরৎ, কর্মচারীদের মুখে কিঞ্চিত হাসি
আহমেদ তেপান্তর
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১১ জুন, ২০২৪, ৬:০৬ PM আপডেট: ১১.০৬.২০২৪ ৬:১৮ PM
বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মুখে হাসি নেই অনেক দিন। বিপুল পরিমাণ টাকা পাওনা থাকলেও তা ফেরৎ দিচ্ছেন না প্রযোজনা সংস্থাগুলো। সে ধারাবাহিকতায় এবার ঈদে তাই বেতনতো দূরের কথা বোনাসও হবে কিনা সংশয় রয়েছে। এমন খবরে তিন দশকের তামাদি হয়ে যাওয়া টাকা ফেরৎ দিয়ে অনন্য নিদর্শন স্থাপন করলেন লিবার্টি শ্যামলী প্রডাকশনের কর্ণধার এম এ মুহিত।

আজ মঙ্গলবার এফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কাছে সংস্থার পাওনা টাকা ফেরৎ দেন এম এ মুহিত। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রদর্শক সমিতির সিনিয়র সহসভাপতি মিয়া আলাউদ্দিন।

তিনি বলেন, এক সময় লিবার্টি শ্যামলী প্রডাকশন হাউজ বড় প্রযোজনা সংস্থা ছিলো। অনেক ভালো ভালো সিনেমা সে হাউজ থেকে নির্মাণ হয়েছে। সর্বশেষ দেওয়ান নজরুলের পরিচালনায় ‘আসমান জমিন’ সিনেমাটি নির্মাণ করে ওই হাউজ। ওই সিনেমার পাওয়া চার লাখ সাত হাজার টাকা প্রযোজক এম এ মুহিত ভাই ফেরতের সিদ্ধান্ত নেন। এ বিষয়ে তিনি আমার সঙ্গে পরামর্শ করলে আমি এফডিসির এমডিকে ফোনে জানাই। তিনি আমাকে অনুরোধ করেন সম্ভব হলে ঈদের আগেই যেন টাকাটা ফেরতের ব্যবস্থা করি। তাহলে কর্মচারীদের হাতে ঈদের আগে কিছু টাকা তুলে দেওয়া যাবে। আমি মুহিত ভাইকে জানালে তিনি রাজি হন। আজ এমডি সাহেবের কাছে সেই টাকাটাই ফেরৎ দিলাম।

তিনি বলেন, অনেক টাকাই তামাদি হয়ে গেছে। আমার মতে যাদের সামর্থ্য আছে তাদের উচিৎ এফডিসির পাওয়া স্বেচ্ছায় ফেরৎ দেওয়া।

এ ব্যাপারে জনসংযোগ কর্মকর্তা হিমাদ্রী বড়ুয়া বলেন, বেতন হচ্ছে না। বোনাস হবে কিনা সেটা এখনই বলতে পারছি না। এখনও বোনাস দিতে দশ লাখ টাকা ঘাটতি। এ সময় মুহিত সাহেবের পাওয়া টাকা ফেরৎ দিয়ে অসাধারণ এক কাজ করেছেন। সত্যি বলতে মিয়া আলাউদ্দিন ভাই সহযোগিতা না করলে ঈদের আগে এই টাকা ফেরৎ সম্ভব ছিলো না। আমরা দু’জনের কাছেই কৃতজ্ঞ।

তিন দশকের আগে নির্মিত ‘আসমান জমিন’ সিনেমাটি চিত্রনাট্য ও পরিচালনা করেছেন দেওয়ান নজরুল। ফোক ফ্যান্টাসি ঘরানার মাল্টিকাস্টিং ‘আসমান জমিন’ সিনেমায় ওয়াসিম, অনজু, ইলিয়াস জাবেদ, নূতন ছাড়াও আজিম সুজাতা, সুচন্দা, আহমেদ শরীফ, মঞ্জুর রাহী, শওকত আকবর, মিনু রহমান, দিলদার, জাম্বু, জাহানারা ভূইয়া প্রমুখ অভিনয় করেছেন।

সিনেমাটিতে দেওয়ান নজরুলের সহকারী হিসেবে এফ আই মানিক ও রানা হামিদ কাজ করেছেন। যোশেফ শতাব্দির কাহিনী ও সংলাপে সংগীতে ছিলেন আলম খান আর ক্যামেরায় অরুন রায়।

স্মৃতি হাতরে এফ আই মানিক বলেন, নব্বই দশকের মাল্টিকাস্টিং সিনেমা। ভালোই ব্যবসা করেছিলো। চমৎকার কিছু গানও ছিলো। প্রযোজক মুহিত ভাই কোনো কার্পণ্য রাখেননি ছবিটি নির্মাণে।

আজকালের খবর/আতে








সর্বশেষ সংবাদ
খালেদা জিয়া কৃষকের ভাগ্য নিয়েও ছিনিমিনি খেলেছিল
পশ্চিমাদের ‘চোর’ বললেন পুতিন, শাস্তির হুঁশিয়ারি
বিএনপিতে ৩৪ জনের পদোন্নতি ৫ জনের পদাবনতি
ভালুকায় কাভার্ডভ্যান-সিএনজি সংঘর্ষে নিহত ২
বঙ্গবন্ধু সেতুতে টোল আদায়ে রেকর্ড
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
কওমি মাদ্রাসায় ছাত্রলীগের বিশেষ সেল গঠনের পরামর্শ শিক্ষামন্ত্রীর
গাজীপুর শহরের রথখোলায় কোরবানির পশুর হাট জমে উঠেছে
ভারতের নির্বাচন নিয়ে মন্তব্য করতে চায় না যুক্তরাষ্ট্র
তিন হাজার ইমামকে ৯০ লাখ টাকা ভাতা প্রদান করলেন জাহাঙ্গীর আলম
গাবতলী হাটে মাঝারি আকারের গরুর চাহিদা বেশি
Follow Us
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : হাউস নং ৩৯ (৫ম তলা), রোড নং ১৭/এ, ব্লক: ই, বনানী, ঢাকা-১২১৩।
ফোন: +৮৮-০২-৪৮৮১১৮৩১-৪, বিজ্ঞাপন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সার্কুলেশন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮, ই-মেইল : বার্তা বিভাগ- newsajkalerkhobor@gmail.com বিজ্ঞাপন- addajkalerkhobor@gmail.com
কপিরাইট © আজকালের খবর সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft