রবিবার ২১ জুলাই ২০২৪
লিবিয়ায় জিম্মি নাটোরের চার যুবক, বাঁচার আকুতি
নাটোর প্রতিনিধি
প্রকাশ: শুক্রবার, ৭ জুন, ২০২৪, ১১:১৭ AM
নাটোরের গুরুদাসপুরে একই গ্রামের চার যুবককে লিবিয়ায় জিম্মি করে পরিবারের কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা মুক্তিপণ চাওয়া হচ্ছে। দুই বছর ধরে তারা লিবিয়ায় শ্রমিক হিসেবে কাজ করছিলেন। তবে গত কয়েকদিন ধরে মুক্তিপণের দাবিতে জিম্মি যুবকদের পরিবারের কাছে শারীরিক নির্যাতনের ভিডিও পাঠাচ্ছে অপহরণকারীরা। জিম্মি চার যুবকের বাড়ি উপজেলার বিয়াঘাট ইউনিয়নের চরপাড়া গ্রামে। অপহরণকারীরা বাংলায় কথা বলছে বলে জানায় পরিবারগুলো।

স্থানীয় সূত্র জানায়, দুই বছর আগে বিয়াঘাট চরপাড়া গ্রামের শাজাহান প্রামাণিকের ছেলে সোহান প্রামাণিক (২০), তয়জাল শেখের ছেলে সাগর হোসেন (২৪), মৃত শুকুর আলীর ছেলে নাজিম আলী (৩২) ও ইনামুল ইসলামের ছেলে বিদ্যুৎ হোসেন (২৬) লিবিয়ায় কাজের জন্য যান। তাদের জমি বন্ধক, গরু বিক্রি ও ঋণ করে বিদেশে পাঠায় পরিবার। দুই বছর ধরে তারা প্রতি মাসে ১৫-২০ হাজার টাকা করে দেশে পাঠিয়েছেন।

২ জুন লিবিয়া থেকে ওই চার প্রবাসীর পরিবারের ইমো নম্বরে কল আসে। রিসিভ করতেই বাংলা ভাষায় চার যুবককে অপহরণের কথা জানিয়ে মুক্তিপণ দাবি করা হয়। ৪০ লাখ টাকা মুক্তিপণ না দেওয়া হলে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়। এমন খবরে পরিবারের সদস্যরা স্তব্ধ হয়ে যান। তার পর থেকেই অপহরণকারীরা ইমোতে জিম্মিদের শারীরিক নির্যাতনের ভিডিও পাঠাতে থাকে। টাকা দিতে না পারলে নির্যাতনের মাত্রা প্রতিদিন বাড়তে থাকবে বলেও জানায় অপহরণকারীরা।

কথা হয় জিম্মি যুবক সোহানের বাবা শাজাহান প্রামাণিকের সঙ্গে। তিনি বলেন, রবিবার তার মোবাইল ফোনের ইমো নম্বরে লিবিয়া থেকে কল আসে। কান্নাজড়িত কণ্ঠে তার ছেলে সোহান বলছিলু ‘মা বাচাঁও, বাবা বাচাঁও। আমাকে অপহরণ করে নিয়ে আসছে। বলতেছে ১০ লাখ টাকা দিতে হবে, না দিলে মেরে ফেলবে।’

তিনি জানান, অপহরণকারীরা সোহানকে একটি কক্ষে বেঁধে রেখে মারধর করে ভিডিও পাঠায়। দুই বছর আগে জমি বন্ধক ও ঋণ করে প্রায় ৪ লাখ টাকা খরচে লিবিয়ায় পাঠিয়েছিলেন ছেলেকে। এখনও ঋণ শোধ করতে পারেননি। মুক্তিপণের টাকা কোথা থেকে দেবেন।

জিম্মি আরেক যুবক নাজিমের স্ত্রী নাদিরা বেগম জানান, এখনও বৃষ্টি হলে ঘরের চালা দিয়ে পানি পড়ে। সংসারে সচ্ছলতা ফেরানোর আশায় অনেক আশা নিয়ে ঋণ করে ৪-৫ লাখ টাকা খরচ করে স্বামীকে প্রবাসে পাঠিয়েছিলেন। এখন সব আশা চূর্ণ হয়ে গেছে। মুক্তিপণের ১০ লাখ টাকা কীভাবে দেবেন! দুই শিশু সন্তান ও বাবা-মাকে নিয়ে এখন তিনি কী করবেন!

জিম্মি যুবক সাগরের মা ছকেরা বেগম বলেন, তিনি বিধবা। স্বামী মারা গেছেন অনেকদিন হয়েছে। সরকারি টিআর-কাবিটা প্রকল্পের নারী শ্রমিক হিসেবে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন। শেষ সম্বল ও এনজিও থেকে ঋণ করে ছেলেকে বিদেশে পাঠিয়েছিলেন। ওই ঋণ এখনও পরিশোধ করতে পারেননি। মুক্তিপণের টাকা দেওয়ার সামর্থ্য তার নেই। সরকার কিছু না করতে পারলে তিনি কিডনি বিক্রি করে ছেলেকে উদ্ধার করবেন।

বিয়াঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান সুজা জানান, লিবিয়ায় তার গ্রামের চার যুবককে অপহরণ করা হয়েছে বলে তিনি শুনেছেন। তিনি তাদের সরকারের সহযোগিতা নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

গুরুদাসপুর থানার কর্মকর্তা (ওসি) মো. উজ্জ্বল হোসেন বলেন, লিবিয়ায় অপহরণের স্বীকার চার যুবকের কথা শুনে আমরা তাদের বাড়িতে যাই। বাড়িতে স্বজনরা আহাজারি করছেন। ইতিমধ্য আমরা বিষয়টি আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি।

আজকালের খবর/এসএইচ








সর্বশেষ সংবাদ
আগুনের পর বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ
সিলেটে বিএনপি নেতা কয়েস লোদী গ্রেপ্তার
সিরাজগঞ্জে পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষে আহত ৪০
‘শিক্ষার্থীদের ঘাড়ে বিএনপি-জামায়াত, নাশকতার নির্দেশ তারেকের’
আন্দোলন স্বাধীনতা বিরোধীদের হাতে চলে গেছে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
ফের দি‌ল্লি যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
ঈদের পর নতুন সূচিতে চলবে মেট্রোরেল
ফেনীতে অস্ত্র ঠেকিয়ে ব্যবসায়ীর দুটি গরু লুট
বিশ্বনাথে বাস-লেগুনার মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
শাকিব খান নয়, চ্যালেঞ্জটা নিজের সঙ্গে: মুন্না খান
Follow Us
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : হাউস নং ৩৯ (৫ম তলা), রোড নং ১৭/এ, ব্লক: ই, বনানী, ঢাকা-১২১৩।
ফোন: +৮৮-০২-৪৮৮১১৮৩১-৪, বিজ্ঞাপন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সার্কুলেশন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮, ই-মেইল : বার্তা বিভাগ- newsajkalerkhobor@gmail.com বিজ্ঞাপন- addajkalerkhobor@gmail.com
কপিরাইট © আজকালের খবর সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft