ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ  রোববার ● ২৩ জানুয়ারি ২০২২ ● ১০ মাঘ ১৪২৮
ই-পেপার  রোববার ● ২৩ জানুয়ারি ২০২২
শিরোনাম: শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আবার আলোচনা করবেন শিক্ষার্থীরা       ময়লার গাড়ির ধাক্কায় এবার পরিচ্ছন্ন কর্মীর মৃত্যু       ময়মনসিংহ মেডিকেলে করোনায় দুজনের মৃত্যু       শিক্ষার্থীদের আবারও অনশন ভাঙার অনুরোধ শিক্ষামন্ত্রীর       বিয়ে বাতিল করলেন প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা       জাপান থেকে আসা শিশুরা ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মায়ের কাছে থাকবে       বরগুনায় যাত্রীবাহী বাস উল্টে আহত ১২      
সেনাবাহিনীর লজিস্টিকসের ওপর ‘এফটিএক্স’ অনুষ্ঠিত
ইসমাঈল হুসাইন ইমু
Published : Thursday, 13 January, 2022 at 6:22 PM, Update: 13.01.2022 6:32:47 PM

রাতভর খবর আসতে  থা‌কে ব‌হিরাগতশত্রু আক্রমণ চালা‌বে আমা‌দের ওপর। সে অনুযা‌য়ী যু‌দ্ধের জন্য প্রস্তু‌তি নেয় বাংলা‌দেশ সেনাবা‌হিনী। সাত সকা‌লেই মুহুর্মুহু গু‌লি আর বোমা বি‌ষ্ফোরণের শ‌ব্দে বাংলার আকাশ ভা‌রি হ‌য়ে ও‌ঠে। সেনাবা‌হিনীর প্যারাট্রুপাররা বিমান থে‌কে প্যারাসুট নি‌য়ে লা‌ফি‌য়ে প‌ড়েন যু‌দ্ধের ময়দা‌নে।  শুরু হয় যুদ্ধ। এক পর্যা‌য়ে সেনাপ্রধানসহ ঊর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্মকর্তারা চ‌লে আসেন ময়দা‌নে। সেনা প্রধা‌নের নি‌র্দে‌শে চৌকশ সেনা‌দের কৌশ‌লে  আত্মসমর্পন কর‌তে বাধ্য হয় শত্রুপক্ষ। তবে এ‌টি কো‌নো দে‌শের স‌ঙ্গে যুদ্ধ নয়।  ময়মনসিংহ জেলার মুক্তাগাছার চেচু বাজার এলাকায় চূড়ান্ত আক্রমণ অনুশীলনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো বাংলাদেশ সেনবাহিনীর চার সপ্তাহব্যাপী পরিচালিত শীতকালীন প্রশিক্ষণ ২০২১-২০২২ 'অনুশীলন নবদিগন্ত। 

বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৯ পদাতিক ডিভিশন সফলভাবে এই অনুশীলন পরিচালনা করে।

সরেজমিনে দেখা গেছে,‌ এই অনুশীলনে সাঁজোয়া বহর, এপিসি, দুরপাল্লার এমএলআরএস এর পাশাপাশি সেনাবাহিনীর ছত্রীসেনা এবং বিমান বাহিনীর মিগ-২৯ জঙ্গি বিমানও ছিলো।  সেনাবাহিনীর কাসা ২৯৫এ বিমান থেকে নেমে আসেন প্যারাট্রূপাররা।  সেনাবা‌হিনীর প্যারাট্রুপারা বিমান থে‌কে প্যারাসুট নি‌য়ে লা‌ফি‌য়ে প‌ড়েন যু‌দ্ধের ময়দা‌নে।  শুরু হয় তুমূল লড়াই । এক পর্যা‌য়ে সেনাপ্রধানসহ ঊর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্মকর্তারা চ‌লে আসেন ময়দা‌নে। সেনা প্রধা‌নের নি‌র্দে‌শে চৌকস সেনা‌দের কৌশ‌লে  আত্মসমর্পন কর‌তে বাধ্য হয় শত্রুপক্ষ। এ‌টি কো‌নো দে‌শের স‌ঙ্গে যুদ্ধ না হলেও প্রকৃত যুদ্ধের আবহ তৈরি করা হয় এবারের শীতকালীন প্রশিক্ষণের চূড়ান্ত পর্বে।  মাসব্যাপী এই শীতকালীন অনুশীলন চলে ঢাকার সাভারসহ সারাদেশে। সেনাবাহিনীর লজিস্টিকস এর ওপরে ফিল্ড ট্রেনিং এক্সারসাইজ (এফটিএক্স) এবারই প্রথমবারের মতো আয়োজন করা হয়। সেনাবাহিনী প্রধানের নির্দেশনা মোতাবেক এবার সারাদেশেই সেনাবাহিনীর সকল স্তরের সদস্য অংশ নেয়। এমনকি সেনাসদরে বহিরাঙ্গন প্রশিক্ষণে অংশ নিয়েছিল।  মুক্তাগাছায় অনুষ্ঠিত চূড়ান্ত অনুশীলন পর্বে অংশ নেয় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৯ পদাতিক ডিভিশন। এর আগে  সেনা সদরের আর্মি কমান্ড পোস্ট ও সাপোর্ট সেন্টার পরিদর্শন করেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান এবং ডিফেন্স জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ডিজাব) সদস্যরা। 

গত ৯ জানুয়ারি সরেজমিনে পরিদর্শনকালে দেখা যায়, নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে জলসিঁড়ি আবাসন এলাকায় প্রকৃত যুদ্ধ পরিস্থিতি আদলেই তৈরি করা হয় সাপোর্ট সেন্টার। সেখানে মাটির নিচে বাঙ্কার কক্ষ স্থাপন। মাটির নিচে বিশাল এলাকাজুড়ে যুদ্ধবন্দিদের রাখার জায়গা। এমনকি সেখানে বন্দিদের জন্য জেনেভা কনভেনশন অনুসারে নেওয়া হয় সার্বিক উদ্যোগ। সেখানে সেনাসদর দফতরের প্রতিটি উইংয়ের ফিল্ড কমান্ড সেন্টার স্থাপন করা হয়েছিল।
সাভারে মিলিটারী ফার্মে মাটির নিচে বিশেষ প্রযুক্তিতে সামরিক কায়দায় বিশাল আয়তনে স্থাপন করা হয় সেনা সদর। সেনা সদরে যেসব কর্মকাণ্ড পরিচালিত হয় তার একটি বহিরাঙ্গন চিত্র দেখা যায় সেখানে। 

বৃহস্পতিবার শীতকালীন অনুশীলনের সমাপনীতে গিয়ে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ বলেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ইতিহাসে প্রথমবারের মত লজিস্টিকস উপরে 'এফটিএক্স' পরিচালনা করল। বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তীতে এটা সেনাবাহিনীর জন্য একটি মাইলফলক। আমরা সক্ষমতার একটা ধাপে আাগালাম। ভবিষ্যতে এটাকে আরও উচ্চ পর্যায়ে নিয়ে যাবো।

সেনাপ্রধান বলেন, আমরা ওই মন্ত্রে গভীরভাবে বিশ্বাস করি, 'কঠিন প্রশিক্ষণ সহজ যুদ্ধ'। আমরা বর্তমানে প্রশিক্ষণকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছি। সর্বোচ্চ পর্যায়ে তথা প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকেও প্রশিক্ষণের উপরে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়ার নির্দেশনা পেয়েছি। আপনারা জানেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে বিদেশে অনেক গুরুদায়িত্ব পালন করছে। বিশেষ করে শান্তিরক্ষা মিশনের কর্মকাণ্ড গুলির সবারই জানা। সেই সমস্ত জায়গায়, বিশেষ করে চ্যালেঞ্জিং জায়গাগুলোর দায়িত্ব পালন করতে প্রশিক্ষণের বিকল্প নাই। 

এক প্রশ্নের জবাবে সেনাবাহিনী প্রধান বলেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর উড়োজাহাজ কিন্তু এই আবহাওয়ার মধ্যেই ৩৬ সেনাসদস্য এখানে এসেছে ও অবতরণ করলো। এই আবহাওয়ায় অনেক সময় অনেক ফ্লাইট চলাচল করে না। বাংলাদেশের এভিয়েশন কিন্তু যুদ্ধক্ষেত্রে পৌঁছে গেছে। 

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সাইবার 'ক্যাপাবিলিটি' বাড়ানোর ব্যাপারে ফোর্সেস গোল ২০৩০ এ আমাদের পরিকল্পনায় আছে। সেই অনুযায়ী আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। আপনারা মনে রাখবেন একটা প্রশিক্ষণেই সমস্ত কিছু ধারণ করা যায় না। এবারের প্রশিক্ষণ আমাদের লজিস্টিকসের উপর। অর্থাৎ আমাদের লজিস্টিকসের সক্ষমতাটা কেমন। সে দিক থেকে আমি অত্যন্ত খুশি, অনেক ভালো হয়েছে। এই লজিস্টিকের এফটিএক্সের সঙ্গে কিন্তু 'অটোমেটিক্যালি' অপারেশন পরিকল্পনাও চলে আসে। 

সেনাবাহিনী সদর দফতরের সামরিক গোয়েন্দা পরিদপ্তরের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মামুন-উর-রশিদ বলেন, গত ১৯ ডিসেম্বর ২০২১ শীতকালীন প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্যে সেনাসদর ও সেনাবাহিনীর সকল ফরমেশন পূর্ণাঙ্গরূপে নিজ নিজ দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় মোতায়েন হয়। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৫০ বছর পূর্তিতে এবার বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রথমবারের মত লজিস্টিকস্ ফিল্ড ট্রেনিং এক্সারসাইজ পরিচালনা করে। সাম্প্রতিককালে নতুন সংযোজিত অস্ত্র ও সরঞ্জাম এবারের অনুশীলনে ব্যবহৃত হয়। তিনি বলেন, সেনাবাহিনীর লজিস্টিকসের স্থাপনাসমূহ প্রথমবারের মত বহিরঙ্গনে মোতায়েন হয়। সব মিলিয়ে সেনাবাহিনীর এবারের শীতকালীন প্রশিক্ষণ ছিল অনেক অভিনব ও বাস্তবধর্মী। সেনাবাহিনীর সকল সদস্য ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা নিয়ে এই শীতকালীন অনুশীলনে অংশগ্রহণ করে।

এদিকে 'অনুশীলন নব দিগন্ত' শেষ হলে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ মুক্তাগাছার চেচুয়া বাজারের পার্শ্ববর্তী জামালপুর জেলার অধীনস্থ হরিণা কান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে গরীব ও দুঃস্থদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করেন । এরপর সেখানে স্থানীয়দের মাঝে চিকিৎসা সেবা প্রদানের কার্যক্রম পরিদর্শন করেন তিনি।

সেনাবাহিনীর প্রধান এ প্রসঙ্গে বলেন, আমরা মানুষদের পাশে আছি। গরিবদের মাঝে কম্বল বিতরণ করছি। চিকিৎসা সামগ্রী বিতরণ করছি। চিকিৎসা সহায়তা করছি। গবাদিপশুরও চিকিৎসা করছি। তাদের জন্য চিকিৎসা সামগ্রী দিচ্ছি। আমরা যখন মাঠে এসেছি তখন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছি। এবারে এখন পর্যন্ত আমরা এক লাখের বেশি কম্বল বিতরণ করেছি। ইনশাআল্লাহ এটা আমরা আরো করবো। 

সমাপনী এই আয়োজনে সেনাসদস্যদের পাশে থেকে এই অনুশীলন পর্যবেক্ষণ করতে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ ছাড়াও আরও উপস্থিত ছিলেন সেনাসদরের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসারবৃন্দ, জিওসি আর্মি ট্রেনিং অ্যান্ড ডকট্রিন কমান্ড এবং অন্যান্য জ্যেষ্ঠ সামরিক কর্মকর্তারা। এর আগে গত ৯জানুয়ারি সাভারে সেনাসদর ফিল্ড কমান্ড পোষ্টে চলমান অভিযানের অগ্রগতির উপর সেনাপ্রধানকে বিস্তারিত ব্রিফ করেন সেনাবাহিনীর চিফ অব জেনারেল স্টাফ লে. জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান এবং লজিষ্টিকস কর্মকান্ডের উপর ব্রিফ করেন কোয়ার্টার মাষ্টার জেনারেল লে. জেনারেল মো. সাইফুল আলম। এসময় ডিফেন্স জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এর সাংবাদিকবৃন্দ এবং অন্যান্য গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। পরে আর্মি ফিল্ড হেডকোয়ার্টার মিডিয়া সেলে’ শীতকালীন প্রশিক্ষণের ওপর প্রেস ব্রিফিং শেষে গণমাধ্যম কর্মীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন সেনাপ্রধান।

আজকালের খবর/হিমু 


সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : হাউস নং ৩৯ (৫ম তলা), রোড নং ১৭/এ, ব্লক: ই, বনানী, ঢাকা-১২১৩।
ফোন: +৮৮-০২-৪৮৮১১৮৩১-৪, বিজ্ঞাপন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সার্কুলেশন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮
ই-মেইল : বার্তা বিভাগ- [email protected] বিজ্ঞাপন- [email protected]
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.net, www.ajkalerkhobor.com