ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ  বুধবার ● ১৬ জুন ২০২১ ● ২ আষাঢ় ১৪২৮
ই-পেপার   বুধবার ● ১৬ জুন ২০২১
শিরোনাম: পরীমনির বিরুদ্ধে ভাঙচুরের অভিযোগ গুলশান অল কমিউনিটি ক্লাবের, পরিদর্শনে যাবে পুলিশ       বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে স্থায়ী ক্যাম্পাসে নিতে ব্যর্থ মন্ত্রণালয়       বাজেট পাসের পরেই এমপিওর আবেদন       চীনকে এক হাত নিলেন জি-৭ নেতারা, কোভিডের উৎসের তদন্ত দাবি       নেতানিয়াহু যুগের অবসান, নতুন সরকারে থাকছে আরব দলও       ভারতীয় সাংস্কৃতিক সম্পর্ক পরিষদের ভিডিও ব্লগিংয়ে তৃতীয় বাংলাদেশের মনসিফ        ধর্ষণ ও হত্যার চেষ্টাকারীর নাম জানালেন পরীমনি      
চাটমোহরে লিচু ফলনে বিপর্যয়: বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে
জাহাঙ্গীর আলম, চাটমোহর
Published : Sunday, 16 May, 2021 at 7:55 PM

পাবনার চাটমোহর উপজেলায় লিচু চড়া দামে বিক্রি হলেও ফলনে বিপর্যয়ের কারণে বাগান মালিকদের মুখে হাসি নেই। চলতি মৌসুমে দীর্ঘ সময়ে অনাবৃষ্টি ও তীব্র খরার কারণে প্রতিটি গাছে লিচু ঝড়ে পড়েছে। যার কারণে আগাম বাগান কিনে রাখা এ অঞ্চলের ব্যবসায়ীদের লোকসান গুনতে হয়েছে। বেশির ভাগ বাগানে লিচু নেই বললেও চলে, তার কারণে এক ফসলি লিচুর ফল বিক্রি করতে না পেরে কৃষক দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। উপজেলার লিচু গ্রাম হিসেবে খ্যাত রামচন্দ্রপুর, জালেশ্বর, নতুনপাড়া, মন্ডলপাড়া, গুনাইগাছা, মল্লিকচক, পৈলানপুর, জাবরকোলসহ আশে-পাশের ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম রয়েছে।

এ কয়েকটি গ্রামের মাঠের পর মাঠ আবাদ হয়েছে লিচু। চলতি বছরে লিচুর মুকুল ব্যাপক আসাতে লিচু চাষিরা মনে করেছিলেন এবার বাম্পার ফলন হবে। এ জন্য শতশত বাগান মালিকরা লিচু উচ্চ দামে বিক্রির জন্য বাগানে প্রচুর যত্ন নিয়েছিলেন। কিন্তু এর সম্পূর্ণ বিপরীত দিকে প্রতিয়মান হয়েছে। তীব্র খরা ও দীর্ঘ সময়ে বৃষ্টিপাত না হওয়ায় লিচুর গুটি প্রথমে ঝড়ে পড়ে যায়। যার কারণে তারা ইচ্ছামত বাগান ব্যাপারিদের কাছে বিক্রি করতে পারেনি। এ অঞ্চলের লিচু বাগান যারা পূর্বে অগ্রিম টাকা দিয়ে কিনেছেন তাদের পুরোটাই লোকসান গুনতে হয়েছে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা সাইদুল ইসলাম জানায়, এবার চাটমোহরে প্রায় ৩’শ ৫০ হেক্টর জমিতে লিচু বাগান রয়েছে। প্রতি বছর বাগানের পরিমান বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রতি বিঘা জমিতে প্রায় ২০টি মত লিচু চারা রোপন করা যায়। তাছাড়া বাড়ির আঙ্গিনায় অনেক কৃষক লিচু বাগান করেছেন। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এবার লিচু উৎপাদন ধরা হয়েছিল সাড়ে ৭ হাজার টন। প্রাকৃতিক কারণে ফলন বিপর্যয় ঘটেছে।    

উপজেলার ক্ষতিগ্রস্থ রামচন্দ্রপুর গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান, সিরাজুল ইসলামসহ অন্যান্যরা জানিয়েছেন, যে সকল বাগান ৩-৪ লাখ টাকায় বিক্রি হত, সে সমস্থ বাগানগুলো মাত্র ২০ হাজার টাকা থেকে ২৫ হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছে। গত বারে যে বাগান ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছিল সে সকল বাগান গুলো মাত্র ৮-১০ হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্থ বাগান মালিকেরা জানিয়েছেন।

স্থানীয় লিচু চাষিরা জানান, এ অঞ্চলে ব্যাপক পরিমানে লিচুর চাষাবাদ হলেও সর্ব প্রথমকে লিচুর চাষাবাদ করেছিল তার সঠিক ইতিহাস কেউ বলতে পারেনি। তবে যতটুকু জানা যায়, উপজেলার মন্ডলপাড়া গ্রামের প্রয়াত খোকা মন্ডল নামে এক ব্যক্তি প্রায় ৪৫ বছর পূর্বে প্রথমে লিচুর বাগান করেন। তার ঐ ধারাবাহিকতায় পর্যায় ক্রমে লিচু আবাদের চাষাবাদ বাড়তে থাকে। বর্তমানে উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় বানিজ্যিক ভাবে লিচু চাষাবাদ হচ্ছে। এ অঞ্চলের দেশি লিচু চলে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে।

লিচু চাষিরা জানান, এখানকার লিচু বাগান ২০ হাজার থেকে ৪-৫ লাখ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়। তবে এবার সম্পূর্ণ বিপরীত হয়েছে। মাত্র অল্প টাকায় বড় বড় বাগান বিক্রি হয়েছে। লিচু চাষী ওয়াজেদ আলী মাষ্টার, লিয়াকত আলী পেন্টু, ওফাজ, মিঠু জানায়, এ মৌসুমে লিচু রক্ষা করতে রাতভর পাহারা দিতে হয়। অন্যথায় বাদুরের ঝাঁক এসে লিচু খেয়ে সাবাড় করে ফেলে।

বাগান মালিক গোলাম মোস্তফা, খলিলুর রহমান, লিয়াকত আলী পেন্টু, মোহাম্মদ আলী, শফিকুল ইসলাম, শহিদুল ইসলাম, মাসুদ, শামসুল আলম, আ. কুদ্দুস, মর্তোজা লিচু বাগান বিক্রি করে কম-বেশি সফলতা পেয়েছেন বলে জানা গেছে।

লিচু ব্যাপারি আবুল হোসেন জানায়, গত বছরে এ অঞ্চল থেকে কোটি টাকার উপরে লিচু বিক্রি হয়েছিল। দেশের বিভিন্ন ব্যাপারি এসে লিচু কেনার জন্য ভীড় জমাতো। প্রতিদিন ট্রাক ট্রাক ভর্তি লিচু ব্যাপারিরা কিনে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় নিয়ে যেত। কিন্তু এ বছরে করোনার প্রভাবে তেমন লিচু ব্যবসার প্রসার লক্ষ করা যায়নি। এবার নিম্ন শ্রেণির লিচুর হাজার ১৩শ' থেকে ১৪শ' টাকা এবং ভালো লিচু ১৮’শ থেকে ১৯’শ টাকায় বিক্রি হয়েছে বলে তিনি জানান।

এব্যাপারে চাটমোহর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এএ মাসুম বিল্লাহ জানায়, অনাবৃষ্টি ও খরা না হলে এ অঞ্চলে লিচু চাষাবাদে কৃষক বেশি লাভবান হতেন। তবে ফলন কম হলেও লিচু বেশি দামে কৃষক বিক্রি করতে পেরেছেন।

একে



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : হাউস নং ৩৯ (৫ম তলা), রোড নং ১৭/এ, ব্লক: ই, বনানী, ঢাকা-১২১৩।
ফোন: +৮৮-০২-৪৮৮১১৮৩১-৪, বিজ্ঞাপন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সার্কুলেশন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮
ই-মেইল : বার্তা- [email protected] বিজ্ঞাপন- [email protected]
দৈনিক আজকালের খবর লিমিটেডের পক্ষে গোলাম মোস্তফা কর্তৃক বাড়ি নং-৫৯, রোড নং-২৭, ব্লক-কে, বনানী, ঢাকা-১২১৩ থেকে প্রকাশিত ও সোনালী প্রিন্টিং প্রেস, ১৬৭ ইনার সার্কুলার রোড (২/১/এ আরামবাগ), ইডেন কমপ্লেক্স, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com